আগামী ৫ বছর কারা চালাবে ভারত?

অনলাইন ডেস্ক :

যাবতীয় আনুষ্ঠানিকতার পর অপেক্ষার পালাও শেষ। বৃহস্পতিবার (২৩  মে) ঘোষণা হবে ভারতের সপ্তদশ জাতীয় সংসদ (লোকসভা) নির্বাচনের ফলাফল। অর্থাৎ এদিনই জানা যাবে বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ জনগোষ্ঠীর এবং সর্ববৃহৎ গণতন্ত্রের রাষ্ট্রে পরবর্তী পাঁচ বছর সরকার চালাবে কারা, ক্ষমতাসীন বিজেপি নাকি স্বাধীনতা আন্দোলনের অগ্রভাগের দল কংগ্রেস।

বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে শুরু হবে ভোট গণনা। গণনা শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ঘোষিত হতে থাকবে ফলাফল। যদিও নির্বাচন কমিশন বলছে, ফলাফল খানিকটা বিলম্বিত হতে পারে। কারণ হিসেবে বলা হচ্ছে, আসনপ্রতি পাঁচটি করে বুথের ইভিএম আর ভিভিপ্যাটের ফল মেলানোর কথা। ভিভিপ্যাট হলো এক ধরনের প্রিন্টার। ইভিএমে ভোট দেওয়ার পর ভোটার নিজেই ওই প্রিন্টার থেকে ছাপা হয়ে বের হওয়া কাগজের স্লিপে দেখে নিতে পারেন যে- তিনি যেখানে ভোট দিয়েছেন, সেখানেই ভোট পড়েছে কি-না। এই স্লিপটি ভোটার নিতে পারেন না, কেবল দেখতে পারেন।

গত ১১ এপ্রিল থেকে শুরু হয়ে ১৯ মে পর্যন্ত ৭ ধাপে অনুষ্ঠিত হয় নির্বাচন। ২৯টি রাজ্য ও ৭টি কেন্দ্রীয় অঞ্চলের ৫৪৩টি আসনে এ ভোটের আয়োজনে ভারতজুড়ে বিরাজ করে উৎসবের আমেজ।

প্রায় ১৩২ কোটি জনগোষ্ঠীর ভারতে এবার ভোটার ছিলেন প্রায় ৯০০ মিলিয়ন বা ৯০ কোটি। ভোট কেন্দ্র ছিল ১০ লাখেরও বেশি। ২০১৪ সালের নির্বাচনে ভোট দিয়েছিলেন ৮১ কোটি ৪৫ লাখ ভোটার। এবার নতুন অর্থাৎ ১৮ থেকে ১৯ বছর বয়সী ভোটার ছিলেন প্রায় দেড় কোটি। ২০১২ সাল থেকে ভোটাধিকার প্রয়োগের সুযোগ পেয়ে আসা তৃতীয় লিঙ্গের জনগোষ্ঠী থেকে এবার ভোটার ছিলেন ৩৮ হাজার ৩২৫ জন। 

Loading...

ভারতের সংসদ দ্বিকক্ষ-বিশিষ্ট। এরমধ্যে একটি হলো লোকসভা, এটি নিম্নকক্ষ; আরেকটি রাজ্যসভা, সেটি উচ্চকক্ষ। লোকসভায় মোট আসন ৫৪৫। এর মধ্যে ৫৪৩ আসনে সরাসরি নির্বাচন হয়। বাকি দু’টি আসনে অ্যাংলো-ইন্ডিয়ান প্রতিনিধিকে মনোনীত করে আনা হয়। সরকার গঠনের জন্য লোকসভায় ২৭২ আসনের প্রয়োজন। রাজ্যসভার সদস্য সংখ্যা ২৫০। এরা রাজ্য বা অঞ্চলগুলোর বিধানসভার সদস্যদের ভোটে রাজ্যসভায় আসেন।

এবার নির্বাচনের সপ্তম ও শেষ দফা ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার পরপরই বিভিন্ন সংস্থা জানাতে থাকে বুথফেরত জরিপের (এক্সিট পোল) ফলাফল। বেশিরভাগ সংস্থার জরিপ মতে, এবারও নরেন্দ্র মোদীর দল বিজেপি প্রায় ৩০০ আসন পেয়ে সরকার গঠন করতে চলেছে। অর্থাৎ ফের প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন গুজরাটের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী। 

যদিও বুথফেরত জরিপের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করেছে প্রধান বিরোধীদল কংগ্রেস এবং তৃণমূল কংগ্রেসের নেতৃত্বাধীন আঞ্চলিক দলগুলোর জোট ফেডারেল ফ্রন্ট। কংগ্রেসের সভাপতি রাহুল গান্ধী সরাসরিই জরিপগুলোকে ‘ভুয়া’ আখ্যা দিয়ে নেতাকর্মীদের আত্মপ্রত্যয়ী থেকে ফলাফলে চোখ রাখতে বলেছেন। মাটি কামড়ে ফলের অপেক্ষা করতে বলেছেন তৃণমূল কংগ্রেস প্রধান মমতা বন্দোপাধ্যায়ও।

তবে বুথফেরত জরিপ যা-ই হোক, পর্যবেক্ষকদের পাশাপাশি বিশ্ববাসীও নজর রাখছে চূড়ান্ত ফলাফলের দিকে। কারণ এই ফলাফলই বলবে, আগামী পাঁচ বছর কারা চালাবে ভারত!

২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত ষোড়শ লোকসভা নির্বাচনে নজিরবিহীন জয় পেয়ে সরকার গড়ে নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বাধীন বিজেপির জোট ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্স। ১৯৮৪ সালের পর প্রথমবারের মতো একক দল হিসেবে সরকার গঠনের মতো আসন পেয়ে যায় বিজেপিই। পদ্মফুল ফুটেছিল ২৮২ আসনে। বিজেপি জোটের অন্য দলগুলো পেয়েছিল ৫৫ আসন। অন্যদিকে আগের সরকার চালানো সোনিয়া গান্ধীর নেতৃত্বাধীন ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল কংগ্রেস পায় মাত্র ৪৪টি আসন। তাদের জোটের দলগুলো পায় ১৫ আসন। এছাড়া পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন তৃণমূল কংগ্রেস পায় ৩৪ আসন। তামিলনাড়ুর প্রয়াত মুখ্যমন্ত্রী জয়ললিতার দল এআইএডিএমকে পায় ৩৭ আসন।