অস্ত্রসহ ৩ রোহিঙ্গা আটক

টেকনাফে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের অপরাধ প্রবণতা বেড়েই চলছে!

গিয়াস উদ্দিন ভুলু,কক্সবাজার জার্নাল

টেকনাফ উপজেলার রোহিঙ্গা বস্তি গুলোতে অস্ত্রধারী রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের নানা প্রকার অপরাধ কর্মকার্ন্ড বেড়ে গেছে।
তথ্য অনুসন্ধানে দেখা যায়, টেকনাফ উপজেলা জুড়ে মাদক পাচার,মানব পাচার খুন,ডাকাতী,অপহরন,ছিনতাই মারামারি,নারী ধর্ষনসহ সংঘঠিত প্রতিটি অপরাধের সাথে সক্রিয় ভাবে জড়িত রয়েছে এই অস্ত্রধারী রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা। এদিকে এই রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের দমন করার জন্য টেকনাফে দায়িত্বরত বিভিন্ন সংস্থার আইন-শৃংখলা বাহিনীর সদস্যদের সাঁড়াশী অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

সেই সুত্র ধরে ১০ জুলাই রাতে টেকনাফ ২ বিজিবি সদস্যরা একটি বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে হ্নীলা নয়াপাড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্প সংলগ্ন এলাকা থেকে দেশীয় তৈরী অস্ত্রসহ ৩ রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীকে আটক করেছে।

এব্যাপারে ১১ জুলাই বৃহস্পতিবার আড়াই টার দিকে ২ বিজিবি অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল মোঃ ফয়সল হাসান খান টেকনাফ সংবাদ কর্মিদের নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন। উক্ত সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন,১০ জুলাই বুধবার রাতে টেকনাফ হ্নীলা ইউনিয়ন ৯নং ওয়ার্ড নয়াপাড়া রোহিঙ্গা বস্তির এইচ ব্লকে সংঘবদ্ধ অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী ও ডাকাতদলের সদস্যরা দেশীয় তৈরী আগ্নেয়াস্ত্রসহ ডাকাতি করার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

সেই গোপন সংবাদের তথ্য অনুযায়ী নয়াপাড়া শরনার্থী ক্যাম্পে বিজিবির একটি বিশেষ টহলদল অভিযান পরিচালনা করে ক্যাম্প সংলগ্ন রাস্তার পাশ থেকে দেশীয় তৈরী অস্ত্রসহ তিন রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীকে আটক করতে সক্ষম হয়।

আটককৃতরা সন্ত্রাসীরা হচ্ছে, নয়াপাড়া ২৬ নং রোহিঙ্গা বস্তির সি-ব্লকের ৫ নং বাসার আব্দুর রহমানের পুত্র সোলতান রহমান (১৯), একই বস্তির ৮২৪ নং বাসার মোহাম্মদ আলমের পুত্র মোঃ আয়াস (১৮) এবং ২নং বাসার মোঃ জুবাইয়ের পুত্র নুর কামাল (১৬)।

এই সময় তাদের কাছ থেকে দেশীয় তৈরি ১টি অস্ত্র ও ১টি খেলনা পিস্তল উদ্ধার করা হয়।

তিনি আরো বলেন, টেকনাফ উপজেলা বেশ কয়েকটি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অস্ত্রধারী রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের অপরাধ কর্মকান্ড বৃদ্ধি পেয়েছে।

এই সমস্ত রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের আইনের আওয়তাই নিয়ে আসতে সীমান্ত প্রহরী বিজিবি সদস্যরা সদা প্রস্তুত রয়েছে। পাশাপাশি রোহিঙ্গা ক্যাম্প গুলোতে বিজিবির জনবল আরো বৃদ্ধি করা হবে।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপিস্থত ছিলেন টেকনাফ ২ বিজিবি উপ-অধিনায়ক মেজর শরীফুল ইসলাম জমাদ্দার।