উখিয়ায় করোনা প্রতিরোধে ‘সুজন সংঘের’ জীবাণুনাশক স্প্রে ছিটানোসহ সচেতনামূলক প্রচারণা

নিজস্ব প্রতিবেদক ◑

বিশ্বব্যাপী মারাত্মক আকার ধারণ করা করোনা ভাইরাস বা ‘নভেল কোভিড ১৯’ প্রতিরোধে গ্রামে গ্রামে জীবাণুনাশক স্প্রে ছিটানোসহ সচেতনতামূলক প্রচারণা চালিয়েছে উখিয়া সামাজিক সংগঠন সুজন সংঘ।

২৮ মার্চ শনিবার উখিয়ার জালিয়াপালং ইউনিয়নের প্রত্যন্ত অঞ্চল জুম্মা পাড়াসহ পাশ্ববর্তী এলাকায় দিনব্যাপী এই প্রচারণা চালান সুজন সংঘের সদস্যরা।

এইসময় সংঘের সদস্যরা করোনা ভাইরাসের প্রাথমিক লক্ষণ বা উপসর্গসমুহ (সর্দি কাশি, মাথাব্যথা, নাক দিয়ে পানি পড়া, শ্বাসকষ্ট, গলাব্যথা, জ্বর, বারবার অজ্ঞান হয়ে যাওয়া ইত্যাদি),

ভাইরাসটি কীভাবে ছড়ায় (শারীরিক ঘনিষ্ঠতা থেকে করমর্দনের মাধ্যমে, রোগী কিংবা তার ব্যবহৃত জিনিস ধরার পর ভালো করে হাত ধুতে হবে, নাহয়, এই হাত চোখ, নাক, মুখে লাগলে এ রোগ ছড়াতে পারে, হাঁচি ও কাশির মাধ্যমেও এ রোগ ছড়াতে পারে),

প্রতিরোধের উপায়সমুহ (খুব ভালো করে হাত ধুয়ে নিন, হাঁচি কাশি দেওয়ার সময় নাক মুখ ঢেকে রাখুন, বাইরে বের হলে মাস্ক ব্যবহার করুন,ডিম, গোশত খুব ভালো করে রান্না করুন, ময়লা কাপড় দ্রুত ধুয়ে ফেলুন আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে দূরে অবস্থান করুন) নিয়ে গ্রামের আবাল বৃদ্ধ বনিতাকে সচেতন করে তোলেন।

এইছাড়া পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার ও গুজব প্রতিরোধে প্রচারণা চালান সংস্থার সদস্যরা।

সংগঠনটির ২০ সদস্যের একটি সেফটি টিমের মাধ্যমে এলাকাজুড়ে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে নিজস্ব অর্থায়নে জীবাণুনাশক স্প্রে ছিটানো হয়।

সামাজিক ও মানবিক সংগঠন ‘সুজন সংঘের’এর সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইব্রাহিম জানান, সামাজিক সংগঠন ‘সুজন সংঘ’ সমাজের প্রতি দায়িত্বের অংশ হিসেবে অতীতেও নানান মাদকমুক্ত সমাজ গঠনসহ নানান কর্মসূচী বাস্তবায়ন করেছে। বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাস ঘাতক হয়ে প্রতিনিয়ত মানুষের প্রাণ নিচ্ছে আর এই সংকট থেকে পরিত্রাণের সবচেয়ে বড় উপায়ও হচ্ছে সচেতনতা। সেটি মাথায় রেখেই গ্রামের মানুষদের মধ্য সচেতনতার লক্ষ্য এই কাজ গুলো করা হয়েছে। ভবিষ্যতেও ‘সুজন সংঘ’ মানবিক কাজে স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে অংশ গ্রহণ করবে।

সামাজিক ও মানবিক সংগঠন ‘সুজন সংঘের’এর প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার সাইফুল ইসলাম জানিয়েছেন, মরণব্যধি করোনা ভাইরাস বিশ্বের একাধিক দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। এটির প্রভাব পড়েছে আমাদের দেশের প্রতিটি অঞ্চলে। করোনা সংক্রমণ থেকে প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষকে রক্ষা করতে সংগঠনের সদস্যরা তাদের সীমিত সাধ্যের করোনাভাইরাসের প্রভাব থেকে জনসাধারণকে রক্ষায় সচেতনতা সৃষ্টির উদ্যোগ নিয়েছে।

তিনি জানান, আমরা ইতিমধ্যে তহবিল সংগ্রহের উদ্যোগ নিয়েছি যাতে খেটে খাওয়া মানুষের দুবেলা দুমুঠো খাবার পৌছাঁতে পারি। মহামারী এই রোগ থেকে নিজ এবং পরিবার প্রতিবেশিকে রক্ষা করতে আমাদের সবাইকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে।

দিনব্যাপী এই প্রোগামে অংশ নেন সিনিয়ার সদস্য বেলাল মাহামুদ, ফেরদৌস আমিন, আবুল হাসান আরিফ, সওকত হায়াত সিফাত, খোরশেদ আলম বাবুল, কামাল উদ্দিন,রহিম উল্লাহ, মেঃকাসেম,আব্দুল আমিন, তারেক, আলমগীর, সাজ্জাদ সহ আরও অনেকে।