উখিয়ার ইউএনও’র ঈদুল ফিতরের জামাত সংক্রান্ত ৬ নির্দেশনা

আবদুল্লাহ আল আজিজ, কক্সবাজার জার্নাল ◑

ভয়াবহ করোনা পরিস্থিতির কারণে উখিয়ার কোথাও ঈদের জামাত খোলা মাঠে হবে না। সীমিত আকারে মসজিদেই হবে ঈদের নামাজ। আবার মসজিদের একাধিক জামাত করা যাবে। তবে মসজিদে কার্পেট বিছানো যাবে না। তবে মুসল্লীরা বাড়ি থেকে জায়-নামাজ নিয়ে আসতে পারবে।

শুক্রবার (২২মে) ঈদের নামাজের জামাত নিয়ে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুক ‘ইউএনও উখিয়া’ ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছে।
ওই স্ট্যাটাসটি হুবুহু তুলে ধরা হলো।

নির্দেশনা সমূহ হলো-

১. খোলা ময়দানে ঈদুল ফিতরের নামাজের জামাত আয়োজন করা যাবে না। মসজিদের অভ্যন্তরে আয়োজন করতে হবে।

২. মসজিদে ১ ঘন্টা পর পর একাধিক জামাত হবে।

৩. প্রতি জামাতে পৃথক পৃথক ইমাম এবং মুয়াজ্জিন থাকবেন।

৪. প্রত্যেক জামাতের পর মসজিদ স্যানিটাইজার দিয়ে জীবাণুমুক্ত করতে হবে।

৫. ৩ ফুট দূরত্ব বজায় রেখে নামাজ আদায় করতে হবে৷

৬. মসজিদে কোন কার্পেট বিছানো যাবে না। মুসল্লীগণ ব্যক্তিগত জায়নামাজ ব্যবহার করতে পারবেন।

উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নিকারুজ্জামান চৌধুরী নিজেদের স্বার্থে সরকারী নির্দেশনা মেনে চলতে সবার প্রতি আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, চলতি বছর করোনা পরিস্থিতির কারণে ঈদের নামাজ আগের মত মাঠে অনুষ্টিত হবে না। এটা ধর্ম মন্ত্রনালয়ের সিন্ধান্ত সে হিসেবে স্থানীয় ভাবে আমরাও জেলা প্রশাসন থেকে সেই সিন্ধান্তের বাস্তবায়ন করতে কাজ করছি। তাই সীমিত আকারে মসজিদেই ঈদের নামাজ অনুষ্টিত হবে।

সেই সঙ্গে তিনি উখিয়া উপজেলার বাসীর প্রতি ঈদুল ফিতরের আগাম শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করেছেন।